ই-পেপার বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০২৪, ১১ বৈশাখ ১৪৩১

ধর্মলায় শিক্ষালয় কোথাও নারী সমাজ সুরক্ষিত নয়

বিপ্লব বড়ুয়া:
২৮ মার্চ ২০২৪, ১৩:১৮

বর্তমানে দেশে নারীর শ্লীলতাহানী, কেলেঙ্কারি, উত্ত্যক্ত, ধর্ষণের সংবাদ বাংলাদেশে এখন নিত্যনৈমিত্তিক ঘটনায় পরিণত হয়েছে। দিনমজুর থেকে ধর্মগুরু, কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক কেউ বাদ নেই এই নগ্ন উদ্যমতায়। এবার সে তালিকায় যুক্ত হলো একুশে পদকপ্রাপ্ত এক ব্যক্তির নামও। তাও আবার শিক্ষায় পদক পাওয়া ব্যক্তি। তিনি আবার বৌদ্ধ ধর্মীয় গুরু হিসেবে কাজ করেন। নৈতিকতা যে কোথায় গিয়ে ঠেকেছে বুঝা দায়! ধর্মালয়ে গিয়ে যেখানে নারীরা নিগ্রহ, নিপীড়নের শিকার হয়, তাহলে কোথায় গিয়ে নারীরা নিজেদেরকে সুরক্ষা করবে ? ধর্মালয় শিক্ষালয় থেকে শুরু করে সর্বত্র বাংলাদেশের নারী সমাজ এখন চরম আতঙ্ক ও নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে। বিশ্বব্যাপী যেখানে নারী-পুরুষের সমান অংশগ্রহণের মাধ্যমে যুগপৎভাবে উন্নয়ন সমৃদ্ধিতে এগিয়ে যাচ্ছে, সেখানে বাংলাদেশের সংবাদ পত্রে প্রতিদিন নারী নিপীড়নের চিত্র ভয়াবহ আঁকার ধারণ করছে। এটি কীসের আলামত! জাতি আর কত অপমান বয়ে বেড়াবে। জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পুরুষ শাসিত সমাজে নারীদের উন্নত জীবনযাপন, শিক্ষা, ব্যবসা, চাকরি সর্বক্ষেত্রে প্রাধান্য দিয়ে নারীবান্ধব একটি শান্তিময় দেশ পরিচালনা করতে যেখানে বদ্ধপরিকর, সেখানে গণমাধ্যমের এ জাতীয় সংবাদ শিরোনাম দেখে আমরা প্রতিনিয়ত উৎকণ্ঠায় বিপর্যস্ত হই যা কখনো সভ্য সমাজের জন্য সুখকর নয়।

নারীরা এখন ঘর থেকে বের হলেই যেন সমূহ বিপদ। এক বোঝা ভীতিকর আতঙ্ক মাথায় নিয়ে চলতে হয়। হাটবাজারে, রাস্তাঘাটে, অফিস-আদালতে, গাড়িতে, ধর্মালয়ে, স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিটি সেক্টরে আজ ইভটিজিংয়ের মাধ্যমে নারী সমাজ লাঞ্ছিত, পদদলিত হচ্ছে। একসময় মনে করতাম শিক্ষালয় ও ধর্মালয় নামের প্রতিষ্ঠানগুলো নারীদের জন্য নিরাপদ স্থান কিন্তু না, এখন ক্রমশ সে স্থান গুলো নারীদের জন্য অনিরাপদ হয়ে উঠেছে। অতকিছুর পরও জীবিকার তাগিদে নারীরা ঘর থেকে বের হয়ে দেশের অর্থনীতির চাকাকে সচল রাখতে প্রাণপণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। এখন প্রশ্ন হচ্ছে নারী সমাজ আর কতকাল নিরাপত্তাহীনতায় দিনাতিপাত করবে ? উন্নত বিশ্বেরর দিকে দৃষ্টি দিলে সহজে অনুমেয় নারীরা কী পরিমাণ পরিবার-সমাজ-দেশের জন্য অবিরাম লড়ে যাচ্ছে। বাংলাদেশ সরকারের রাষ্ট্র পরিচালনা, মন্ত্রী পরিষদ, জনপ্রতিনিধি নির্বাচনে বিগত ৩০ বছরের তুলনায় এখন নারীদের সর্বোচ্চ আধিক্য থাকলেও সামষ্টিক পর্যায়ে নারীদের জীবনমান এখনো যোজন যোজন দূরে। বিচারহীনতা এর জন্য বড়ো একটি দায় বলে অনেকে মনে করেন। নারীদের শ্লীলতাহানী, উত্ত্যক্ত, ধর্ষণের মতো ঘটনায় গ্রেফতার হওয়া আসামীরা কিছুদিন না যেতে আইনের ফাঁকফোকর দিয়ে বেরিয়ে যাওয়ার কারণে নারীদের প্রতি একশ্রেণির পাষণ্ডরা নষ্টামি ভণ্ডামীর নগ্ন উন্মত্ততায় দাপিয়ে বেড়াচ্ছে।

এক্ষেত্রে কয়েকটি ঘটনার উদাহরণ তুলে ধরতে চাই। ২০২৩ সালে ১১ নভেম্বর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্রীকে যৌন হয়রানি করেন সমাজকল্যাণ ও গবেষণা ইন্সটিটিউটের ড. মো. নরুল ইসলাম নামের এক শিক্ষক। ছাত্রীকে তাঁর নিজ কক্ষে নিয়ে গিয়ে যৌন করেন। জানা যায় এই শিক্ষকের বিরুদ্ধে বিগত সময়েও অনেক শিক্ষার্থী যৌন হয়রানির শিকার হয়েছিলেন। কিন্তু তার বিরুদ্ধে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ কোনোরকম ব্যবস্থা করেনি বলে জানাজায়। ২০২৪ এর ১০ ফেব্রুয়ারির এক ছাত্রীকে যৌন হয়রানির অভিযোগ উঠলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষক নাদির জুনাইদকে তিন মাসের জন্য সকল অ্যাকাডেমিক কার্যক্রম থেকে বহিষ্কার করা হয়। ময়মনসিংহ জাতীয় কবি নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক মিনহাজ উদ্দীনের বিরুদ্ধে বিশ্ববিদ্যালয়ের হিসাব বিজ্ঞান ও তথ্য পদ্ধতি বিভাগের এক শিক্ষার্থীকে ধর্ষণ করার অভিযোগে পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে। জাহাঙ্গির নগর বিশ্ববিদ্যালয়ের কথায় ধরুন সেখানে একশ্রেণির ছাত্র নামধারীদের হাতে চলতি বছরের ৩ ফেব্রুয়ারি পূর্ব পরিচিত এক দম্পতিকে কৌশলে ক্যাম্পাসে ডেকে নিয়ে স্বামীকে মারধর করে বেঁধে রেখে মোস্তাফিজ ও মামুন নামের ছাত্র লীগের নামধারী যুবক স্ত্রীকে নারকীয়ভাবে ধর্ষণ করে।

একই চিত্র দেশের সবকটি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে একের পর এক ঘটনা ঘটে চলেছে। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে এক ছাত্রীকে ধর্ষণ চেষ্টার ঘটনায় অভিযুক্ত হয়ে রসায়ন বিভাগের শিক্ষক ড. মাহবুবুল মতিনকে স্থায়ীভাবে অপসারণ করা হয়। সেই শিক্ষক ১৩ জানুয়ারি ছাত্রীকে নিজের কক্ষে ডেকে নিয়ে স্পর্শকাতর স্থানে হাত দেওয়া, জড়িয়ে ধরাসহ নানাভাবে যৌন হয়রানি করে ধর্ষণের চেষ্টা চালায়। সিলেটের টিলাগড় এলাকায় বেড়াতে গিয়ে এমসি কলেজের সামনে থেকে তুলে নিয়ে বিগত ২০২০ সালের ২৫ সেপ্টেম্বর স্বামীকে বেঁধে রেখে স্ত্রীর উপর পাশবিক নির্যাতন দেশবাসী প্রত্যক্ষ করেছে। চট্টগ্রামে একটি কোচিং সেন্টারে পড়তে গিয়ে নবম শ্রেণির এক ছাত্রীকে হাত-পা বেঁধে ধর্ষণ করে। চলতি বছর ১৫ এপ্রিল ধর্ষণের শিকার ছাত্রীর মা মামলা দায়ের করলে শিক্ষক সাইফুল ইসলামকে পুলিশ গ্রেফতার করে। প্রতিকার না পেয়ে ঘুমের ওষুধ খেয়ে আত্মহত্যা করে ছাত্রীটি। গত ১৫ মার্চ ঢাকা জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের ছাত্রী ফাইরুজ সাদাফ অবন্তিকা কর্তৃপক্ষকে জানানোর পর ও কোনো রকম সুরক্ষা না পাওয়ায় শিক্ষক সহকারী প্রক্টর দ্বীন ইসলাম ও এক সহপার্টি আম্মান সিদ্দীকির নাম উল্লেখ করে তিনি আত্মহত্যার পথ বেঁচে নেন। কুমিল্লার নিজ বাড়িতে তাদের বিরুদ্ধে ফেসবুকে পোস্ট দিয়ে আত্মহত্যা করে। অবন্তিকা এই দুইজনের হাতে দীর্ঘ সময় ধরে নানাভাবে নির্যাতন হওয়ার ঘটনা উল্লেখ করেন। একই বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিল্ম অ্যান্ড টেলিভিশন বিভাগের শিক্ষার্থীকে যৌন হয়রানির অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় গত ২১ মার্চ বিভাগের শিক্ষক আবু শাহেদ ইমনকে সাময়িক বহিষ্কার ও অধ্যাপক জুনায়েদ আহমেদ হালিমকে চেয়ারম্যানের পদ থেকে সড়িয়ে দেওয়া হয়।

ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থী যৌন হয়রানির শিকার হন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবসা প্রশাসন ইন্সটিটিউটের শিক্ষক ওয়াসেল বিন সাদাতের নিকট ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২৩ বিশ্ববিদ্যালয়ের এক সিন্ডিকেট সভায় সিদ্ধান্তক্রমে তাঁকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করে। ২০২০ সালের ৬ জানুয়ারি খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষক পদে ইন্টারভিউ দিতে গিয়ে যৌন হয়রানির শিকার হন বিশ্ববিদ্যালয়ের খোদ উপচার্য প্রফেসর ড. মোহাম্মদ ফায়েক উজ্জামানের হাতে। তাঁর বিরুদ্ধে অজস্র দুর্নীতির অভিযোগ ওঠে।

নারীদের উৎপীড়নে এত নামের ভিড়ে যখন একজন ধর্মগুরু, শিক্ষক আবার শিক্ষায় একুশে পদকে ভূষিত কারো নাম অভিযোগে যুক্ত হতে দেখি তখন ভাবি আসলে আমরা কোন দেশে বাস করছি। প্রত্যেক ধর্মের কিছু কিছু গুরুর অনৈতিক কারণে আজ ধর্মচর্চার প্রতি এক ধরনের অনীহা প্রকাশ পাচ্ছে। কিন্তু একজন একুশে পদক প্রাপ্ত ব্যক্তির আচরণ এরকম হবে কেন? খুব জানতে ইচ্ছে করে এই জাতীয় লোকগুলো আসলে মানুষের রক্ত বহন করে কিনা। গত ৮ মার্চ নারী দিবসের দিন চট্টগ্রামে এক বৌদ্ধ ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের আঙ্গিনায় একটি তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে নারীর শ্লীলতাহানীর চিত্র ও ভিডিও ফুটেজ দেশের গণমাধ্যমে প্রকাশিত ও প্রচারিত হয়। যাকে অভিযুক্ত করা হয় তিনি হলেন ২০২৪ সালে একুশে পদক প্রাপ্ত, চট্টগ্রাম বিশ^বিদ্যালয়ের পালি বিভাগের শিক্ষক ড. জিনবোধি ভিক্ষু। একজন নারীর শাড়ি টেনে খুলে ফেলার এই বীভৎস চিত্র দেখে বলতে হয় মাতৃজাতির সুরক্ষা কোথায় ? এই সংবাদ গত ৯ ই র্মাচ জাতীয় পত্রিকা দৈনিক যুগান্তর, দৈনিক কালবেলা প্রিন্ট ও অনলাইন ভার্সন, ইলেক্ট্রোনিক্স সংবাদ চ্যানেল ‘সময়’ টেলিভিশন, চট্টগ্রামের স্থানীয় দৈনিক আজাদি অনলাইন সংস্করণ ও একাধিক নিউজ পোট্রাল অনলাইন গণমাধ্যমে নারী নেত্রীর শ্লীলতাহানীর ভিডিও ফুটেজ ও ছবি ফলাও করে প্রচারিত হয়। এতে দেখায়ায় নারী নেত্রীর শাড়ি ধরে অগ্নিমূর্তি ধারণ করে তলপেটে আঘাত করে শাড়ি টেনে খুলে ফেলার দৃশ্য। ১০ মার্চ জিনবোধি ভিক্ষুর অনুসারীরা শ্লীলতাহানীকে মিথ্যা বানোয়াট উল্লেখ করে উলটো তার ওপর হামলা হয়েছে অভিযোগ তুলে সংবাদ সম্মেলন করে দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করে। ১১ মার্চ শ্লীলতাহানীর অভিযোগ তুলে নারী নেত্রী রেখা রানী বড়ুয়া ও চট্টগ্রাম বৌদ্ধ বিহার পরিচালনায় দায়িত্বে থাকা সংগঠন বাংলাদেশি বৌদ্ধদের শীর্ষ সংগঠন বাংলাদেশ বৌদ্ধ সমিতি চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবে এক যৌথ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করেন। নারীর শ্লীলতাহানীর চেষ্টায় সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষক জিনবোধি ভিক্ষুর কাছ থেকে বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক দেয়া একুশে পদক প্রত্যাহার ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের পালি বিভাগের শিক্ষক পদ থেকে বহিষ্কারের দাবি তোলা হয়।

এই ধর্মগুরুর বিরুদ্ধে এই সংবাদ সম্মেলনে অনেক অভিযোগ উত্থাপন করেন তাঁর বিরুদ্ধে চট্টগ্রাম নগর ও গ্রামে একাধিক বিহার (মন্দির) দখলে রাখার জন্য এক ডজনেরও বেশি সংখ্যক মামলা চলমান আছে বলে তাঁরা জানান। এছাড়া জায়গা ব্যবসা, বুদ্ধমূর্তি ব্যবসা, র‌্যাবের ক্রসফায়ারে নিহত জঙ্গল সলিমপুরের ত্রাস সন্ত্রাসী আক্কাস বাহিনীর প্রধান আক্কাসের সাথে সখ্যতার ফিরিস্তি উত্থাপন করেন তাঁরা। গত ১০ মার্চ রেখা রানী বড়ুয়া কর্তৃক জিনবোধি ভিক্ষুর বিরুদ্ধে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন আদালতে দায়ের কৃত মামলা থেকে জানায়ায় গত ৮ মার্চ ছিল নারী দিবস এই দিন চট্টগ্রামে বিশিষ্ট নারী নেত্রী রেখা রানী বড়ুয়া বাসার সন্নিকটে শতাব্দী পুরোনো ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান চট্টগ্রাম বৌদ্ধ বিহারে পুজা-প্রার্থনা করতে গেলে সকাল সাড়ে ১০টা নাগাদ এই অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটে।

জানাজায়, নারীনেত্রী সেদিন নগর শ্রমিক লীগ আয়োজিত নারী দিবসের কর্মসূচি যোগদানের উদ্দেশ্যে বাসা থেকে বের হয়ে প্রতিদিনের ন্যায় পুজা-প্রার্থনা করতে গিয়েছিলেন। নারী নেত্রী বলেন, যেখানে বৌদ্ধ ধর্মে ভিক্ষুদের পরিহিত কাপড় সাধারণ পুরুষ গৃহীদের শরীর স্পর্শ করলে পাপ হয়, সেখানে আমার মতো একজন নারীর কাপড় টেনে খুলে ফেলার চেষ্টায় জনসমাজে আমি খুব বিব্রতবোধ করছি। ‘তোর বেইশ্যার কাতারে ফোরাম’ অর্থ খারাপ মহিলা বলে নোংরা ভাষায় গালাগালির শব্দ ভিডিও ফুটেজে শোনা যাচ্ছে। ঘটনার পর থেকে জিনবোধি ভিক্ষুর নাম উল্লেখ করে কথাটি এখন মানুষের মুখে মুখে ছড়িয়ে পড়েছে। সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, এই ভিক্ষু সেদিন তাকে উল্টো হামলার অভিযোগ করে ফেসবুকে ভুয়া আওয়াজ তুললে তার অনুসারীরা পরিকল্পিতভাবে চট্টগ্রামের বাইরে থেকে নিয়ে আসা কিছু যুবক ও বৌদ্ধ ভিক্ষু চট্টগ্রাম বৌদ্ধ বিহারের গেইট ভেঙ্গে ল্যাপটপ, কম্পিউটার লুটপাট, আলমিরা, ভিক্ষুদের কক্ষ, অফিসের আসবাবপত্র ভাঙচুর ও দলিল দস্তাবেজ আগুন লাগিয়ে পুড়িয়ে দিয়ে তালেবানি কায়দায় ধ্বংসযজ্ঞ চালায়। যা বর্বরতার শামিল। একজন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক তদুপরি একজন ধর্মীয় গুরুর জীবনাচরণ যদি এই অবস্থা হয় তাহলে কাদের কাছ থেকে সুশীল সমাজ আশা করবো, সাধারণের দুঃশ্চিন্তার বিষয় নয় কী ?

আইন ও সালিশ কেন্দ্র (আসক) এর পরিসংখ্যান অনুযায়ী ২০২৩ সালে সারাদেশে ধর্ষণ ও সংঘবদ্ধ ধর্ষণের শিকার হয়েছেন মোট ৫৭৩ জন নারী। এর মধ্যে ধর্ষণ পরবর্তী হত্যার শিকার হয়েছেন ৩৩ জন এবং ধর্ষণের পর আত্মহত্যা করেছেন ৫ জন আর ধর্ষণ চেষ্টার শিকার হয়েছে ১২৯ জন। দেখুন কী যে ভয়াবহ অবস্থা। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী একজন প্রতিভাদীপ্ত নারী। মাতৃজাতি নারী সমাজের সার্বিক নিরাপত্তা ও সর্বোচ্চ সুরক্ষার ব্যাপারে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আরো বেশি সজাগ দৃষ্টি রাখবেন প্রত্যাশা সাধারণ মানুষের।

লেখক : সাংবাদিক ও প্রাবন্ধিক।

আমার বার্তা/জেএইচ

রাখাইনে রোহিঙ্গাদের গ্রহনযোগ্যতা বাড়াতে কি করা হচ্ছে

বাংলাদেশ সাতবছর ধরে মিয়ানমার সৃষ্ট রোহিঙ্গা সংকটের বোঝা বহন করে চলছে। বর্তমানে মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে

মানব সৃষ্ট বিপর্যয় থেকে পৃথিবীকে রক্ষা করতে হবে

২২ এপ্রিল বিশ্বব্যাপি বিশ্ব ধরিত্রী দিবস পালন করা হয়। ধরিত্রী শব্দটি এসেছে ধরণী বা ধরা

পুড়ছে ধরিত্রী, জ্বলছে জীবন

ভালো নেই ধরিত্রী। এখন পর্যন্ত এই মহাবিশে^র বসবাস উপযোগী একমাত্র গ্রহ পৃথিবী বা ধরিত্রী। তবে

আকাশ পথে স্বপ্নযাত্রার সঙ্গী ইউএস বাংলা

ইউএস- বাংলা। এটা শুধু একটা নাম নয়। এটা একটা স্বপ্নের নাম। বাংলাদেশের একটি অন্যতম বেসরকারী
  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

বাবুলকে আপত্তিকর অবস্থায় দেখে ফেলায় খুন হন মিতু

ভারতীয় মসলায় ক্যানসারের উপাদান, নিষিদ্ধ হংকং-সিঙ্গাপুরে

সনদ-টাকা কারা নিয়েছেন খুঁজে বের করবো: ডিবিপ্রধান

শিশুর হ্যান্ড ফুট অ্যান্ড মাউথ ডিজিজ কি

সারাদেশে ইন্টারনেটের ভোগান্তি চলতে পারে এক মাস

ব্যাংক একীভূতকরণ দায়মুক্তির নতুন মুখোশ: টিআইবি

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান আর বন্ধ নয়, অনলাইনে ক্লাস চান অভিভাবকরা

তিনদিন মেয়াদি ইন্টারনেট প্যাকেজ ফিরছে

জাতীয়করণে নেতৃত্ব দেওয়া শিক্ষক কাওছার আলী বরখাস্ত

উপজেলা নির্বাচনের চতুর্থ ধাপের তফসিল ঘোষণা

ঢাকা ছাড়লেন কাতারের আমির

প্রথম ধাপের উপজেলা ভোটে ২৬ প্রার্থী বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ী

দায় স্বীকার কারিগরি শিক্ষাবোর্ডের সাবেক চেয়ারম্যানের

যুক্তরাষ্ট্র থেকে কোটি টাকার মাদকের পার্সেল, গ্রেপ্তার ৩

চুয়াডাঙ্গায় তাপমাত্রা ৩৯.৬ ডিগ্রি

কেএনএফের সঙ্গে সংশ্লিষ্টতায় ছাত্রলীগ নেতাসহ ৭ জন কারাগারে

জিম্বাবুয়ে সিরিজের ক্যাম্পে সাইফউদ্দিন-আফিফ

সোনার দাম ভ‌রিতে কমলো ৩১৩৮ টাকা

কাতারের কাছে দীর্ঘমেয়াদি জ্বালানি সহায়তা চায় বাংলাদেশ

পদ্মায় গোসলে নেমে ৩ কিশোরের মৃত্যু